মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০

বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমি’র ৫৩তম বার্ষিক পরিকল্পনা সম্মেলনের উদ্বোধন


প্রকাশন তারিখ : 2020-09-19

আজ ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ খ্রিস্টাব্দ বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমি (বার্ড)-এর ময়নামতি অডিটোরিয়ামে দুই দিন ব্যাপী ৫৩তম বার্ষিক পরিকল্পনা সম্মেলনের উদ্বোধন হয়েছে। সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব মোঃ তাজুল ইসলাম, এমপি। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা-০৬ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য জনাব আ. ক. ম. বাহাউদ্দিন। সম্মেলনের উদ্বোধনী অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের মাননীয় সচিব জনাব মোঃ রেজাউল আহসান। পরিকল্পনা সম্মেলন গেষ্ট অব অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিরডাপের মহাপরিচালক ড. চার্ডস্যাক ভিরাপাত। পরিকল্পনা সম্মেলনে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের উচ্চ ও মধ্য পর্যায়ের ১০৫ জন প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেন।

 

 প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মাননীয় মন্ত্রী বলেন, যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশ পূনর্গঠনে ও বাংলাদেশের পল্লী উন্নয়নে বার্ড অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে। বার্ডের পরীক্ষামূলক প্রকল্পগুলো সারা বাংলাদেশে জাতীয় পর্যায়ে বাস্তবায়িত হয়েছে। বর্তমান এলজিইডি, উপজেলা কমপ্লেক্স, বিএডিসি বার্ডের সফল কর্মসূচির ফসল। তিনি আরও বলেন, স্থায়ীভাবে দেশের দারিদ্র্য বিমোচনের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন প্রসূত ‘আমার বাড়ী আমার খামার’ প্রকল্পের আওতায় লালমাই-ময়নামতি প্রকল্পের মাধ্যমে কুমিল্লার লালমাই অঞ্চলের পাহাড়ী এলাকার জনগণের জীবন-জীবিকার মানোন্নয়নে বিভিন্ন কম্পোনেন্ট বাস্তবায়িত হচ্ছে। তিনি সরকারের অগ্রাধিকারভুক্ত এজেন্ডা “আমার গ্রাম আমার শহর” বাস্তবায়নে বার্ড কে অগ্রনী ভূমিকা গ্রহনের জন্য আহবান জানান।

সভাপতির বক্তৃতায় পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের মাননীয় সচিব জনাব মোঃ রেজাউল আহসান বলেন, বার্ড বাংলাদেশের পল্লী উন্নয়নে সূতিকাগারের ভূমিকা পালন করেছে। বার্ডের পরীক্ষামূলক প্রকল্পগুলো সারা বাংলাদেশে জাতীয় পর্যায়ে বাস্তবায়িত হয়েছে। বর্তমান এলজিইডি, উপজেলা কমপ্লেক্স, বিএডিসি বার্ডের সফল কর্মসূচির ফসল।

বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় জনাব আ. ক. ম. বাহাউদ্দিন বলেন, বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমি (বার্ড) কুমিল্লা তথা বাংলাদেশের একটি ঐতিহ্যবাহী স্বনামধন্য গবেষণা ও প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান। তিনি আরও বলেন, বার্ড অতীতের মত ভবিষ্যতেও পল্লী’র জনগণের ভাগ্য উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাবে।

 

নীতি নির্ধারনী পেপার উপস্থাপনায় বার্ডের মহাপরিচালক জনাব মোঃ শাহজাহান বার্ডের বর্তমান কার্যক্রম এবং “আমার গ্রাম আমার শহর” ও “কৃষি যান্ত্রিকীকরণের বিকাশ” শীর্ষক প্রায়োগিক গবেষণাসহ অন্যান্য প্রায়োগিক গবেষণার কথা তুলে ধরেন। তিনি আরও বলেন, অতীতের মত বার্ড পল্লী’র জনগণের ভাগ্য উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

 

 বার্ড গত অর্থবছরে ১০টি আন্তর্জাতিক কোর্সসহ মোট ২৬৩টি কোর্সের মাধ্যমে ৯৫৫০ জনকে প্রশিক্ষণ প্রদান করেছে। জাতীয় পর্যায়ে প্রশিক্ষণের মধ্যে রয়েছে বিসিএস ক্যাডারভুক্ত কর্মকর্তাদের বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ, বিশেষ বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ, বিভিন্ন প্রকল্পের তৃণমূল পর্যায়ের সুফলভোগীদের জন্য আয়োজিত প্রশিক্ষণ কোর্স। গবেষণা কার্যক্রমের অংশ হিসেবে বার্ড গত বার্ষিক পরিকল্পনা সম্মেলনের সিদ্ধান্তের আলোকে 1৪ টি গবেষণাকর্ম সম্পন্ন করেছে। বার্ড বর্তমানে সরকারের রাজস্ব খাতের অন্তর্ভুক্ত লালমাই ময়নামতি প্রকল্প, বার্ড ভৌত সুবিধাদি উন্নয়ন প্রকল্প, বার্ড আধুনিকায়ন প্রকল্প এবং সিভিডিপি ৩য় পর্যায় প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। এছাড়া বার্ড নিজস্ব অর্থায়নে ১৩টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব মোঃ তাজুল ইসলাম, এমপি-সহ অন্যান্য অতিথিবর্গ মুজিব বর্ষ উদযাপন উপলক্ষে বার্ড কর্তৃক প্রকাশিত বিভিন্ন স্মারক গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করা হয়। পরবর্তীতে মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় লালমাই-ময়নামতি প্রকল্পের ৩৫ জন সুফলভোগীর মাঝে ৩০ হাজার টাকা করে ১০ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা ঋন বিতরণ করেন এবং মুজিব বর্ষ উদযাপন উপলক্ষে অন্যান্য অতিথিবর্গসহ বার্ড প্রাঙ্গনে বৃক্ষরোপন করেন। লালমাই-ময়নামতি প্রকল্পের সুফলভোগীদের এ পর্যন্ত ৪ কোটি টাকা ঋন বিতরণ করা হয়েছে।

পরিকল্পনা সম্মেলনে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন বার্ডের পরিচালক (প্রশিক্ষণ) জনাব মোহাম্মদ আবদুল কাদের। সম্মেলনে ধন্যবাদ বক্তব্য প্রদান করেন বার্ডের অতিরিক্ত মহাপরিচালক ড. মাসুদুল হক চৌধুরী। বার্ডের ৫৩তম পরিকল্পনা সম্মেলনের আহবায়কের দায়িত্ব পালন করছেন ড. মোঃ শফিকুল ইসলাম, পরিচালক (প্রশাসন)। পরিকল্পনা সম্মেলনের সহযোগী আহবায়ক ও সহকারী আহবায়ক হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করছেন যথাক্রমে জনাব সালাহ উদ্দিন ইবনে সাঈদ, যুগ্ম পরিচালক ও জনাব কামরুল হাসান, সহকারী পরিচালক।

 



Share with :

Facebook Facebook